You are hereWelcome

Welcome


"যে মুহুর্তে কোরবাণীর রক্ত ভূপৃষ্ঠে পাতিত হয়, সে মুহুর্তেই কোরবণীদাতা ব্যক্তির গুনাহ মাফ হয়ে যায়৷ যেহেতু কোরবাণী একটি আল্লাহর দেওয়া পবিত্র বিধান, তাই কোরবাণীদাতা জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্ত হয়৷"চ্ (জবভ. কঁত্‍নধহ াব ঋধুরষবঃষবত্‍র, ঋবত্‍রফঁহ ণ্#৩০৫;ষসধু ণহৃপবষবত্‍, ১৯৮৫, ং.১০-১১). উদ্দেশ্য এই যে কোরবাণী দ্বারা গুনাহ মাফ এবং বেহেস্তবাসী হবার আশা যোগায়৷

কিন্তু একটি পশুর রক্ত কি পারে আমাদের গুনাহ মাফ করতে? অথবা একটি পশু জবাই করাই কি একটি উদ্দেশ্যপূর্ণ সত্যকে প্রকাশ করে? আসুন ইব্রাহীমের ঘটনাটি দেখি, তিনি যে নিজ পুত্রকে কোরবাণী দিতে চেয়েছিলেন তা কি তার আল্লাহর প্রতি বাধ্যতার বহি:প্রকাশ নয়? এই ঘটনাটি আমরা দেখতে পাই আল্লাহর প্রথম ইচ্ছা ছিল ইব্রাহীমের নিজ সন্তান কোরবাণী করা, কোন পশুকে নয়৷ এর অর্থ কি? আমরা নিজেকে প্রশ্ন করি কারণ আল্লাহ কখনও উদ্দেশ্য ছাড়া কোন আদেশ দেন না৷ এমনকি তিনি যা বলেন তা হয়ে যায়৷ যদি আল্লাহ কোন ব্যক্তিকে উত্‍সর্গ করতে বলেন তাহলে সত্যি সত্যিই একদিন তা পালিত হবে৷

আল্লাহ আদেশ করলেন এবং ইব্রাহীমকে তার পুত্রকে কোরবণী করতে নিষেধ করলেন৷ কিন্তু কেন? শেষ পর্যন্ত আল্লাহ কি মন পরিবর্তন করলেন? না, আল্লাহ দুটি আদেশ দিতে পারেন না, যা এক অপরের কাছে বিপরিতমুখী হয়৷ আল্লাহর একটিই মাত্র বাসনা যে ইব্রাহীম তার পুত্রকে কোরবাণী করবেন, হঁ্যা ইব্রাহীম তাই করেছিলেন৷ আল্লাহর তিনি ভবিষ্যত্‍ নির্ধারন করেছিলেন, আর তাই তিনি ইব্রাহীমের তরবাবী থামিয়ে দিলেন৷

আমরা এখন বুঝতে পারি আল্লাহ ইব্রাহীমের এই ঘটনা দ্বারা আমাদের কি বুঝাতে চান এবং বিশ্বাস করি যে আল্লাহ ঈসা মশীহকে দান করলেন৷ আমরা বিশ্বাস করি যে এমন কিছু নাই যা ইব্রাহীমের সন্তানকে কোরবাণী পূর্ণত দিতে পারে, তাই ঈসা মশীহ ছলিবে কোরবানী হলেন এবং তিন দিন পর পুনরন্থিত হলেন৷ পশু কোরবাণীর রক্ত যার কোন ক্ষমতা নাই আমাদের গুনাহ মাফ করার, যা আল ঈসা মশীহ মেষসাবকের রক্ত দিতে পারে, তিনিই নাজাত দাতা ঈসা মশীহ৷ আল্লাহ ইব্রহীমকে যে আদেশ দিয়েছিলেন তা ঈসা মশীহ মাধ্যমে পূরণ হল৷ এখন আমরা বুঝতে পারি গুনাহ থেকে নাজাত এবং অনন্ত জিন্দেঘীর নিশ্চয়তা পশুর রক্ত দিতে পারে না৷ আল্লাহ অশেষ রহমতে বিনা মূল্যে তা আমাদের দিয়েছেন৷ সত্যই আল্লাহ আমাদের কাছ কেথে কিছু চান না, তাঁর রহমত ও করুনাই আমাদের জন্য যথেষ্ট৷

এখন আমরা জানলাম যে কিভাবে নাজাত পাওয়া যায়, যেহেতু মেষসাবক ইব্রাহীম যোগাননি, আল্লাহ যুগিয়েছেন, একই ভাবে তিনি আমাদের নাজাতে ব্যবস্থা কওে দিলেন৷ তাঁর অতুলনীয় জন্ম, আল্লাহর মেষসাবক হযতর ঈসা মশীহ যাকে স্বয়ং আল্লাহ পয়দা করে বেহেস্ত থেকে পাঠিয়েছিলেন৷
তরিকা দাতা ইউহোন্না এভাবে সাক্ষ্য দেন,'দেখ আল্লাহর মেষসাবক যিনি দুনিয়ার গুনা মাফ করেন৷' (ইউহোন্না ১:২৯) একথা মনে রাখতে হবে, যখন আমরা কোরবাণী উত্‍সব পালন করব তা অবশ্যই জ্ঞান ও ঈমানের সাথে করতে হবে৷